সূর্যের কাছে যাবে বিশেষ স্যাটেলাইট

আলো ও তাপ দিয়ে পৃথিবী কে বাঁচিয়ে রেখেছে সূর্য। কিন্তু সেই সূর্য সম্পর্কে আমাদের খুব বেশি জানা নেই। তাই এবার সূর্যের কাছে যাবে বিশেষ স্যাটেলাইট সোলার অরবিটার। সূর্যের চৌম্বক ক্ষেত্র ও অন্যান্য রহস্যের সমাধান খুঁজে স্যাটেলাইট।

সূর্যের কাছে যাবে বিশেষ স্যাটেলাইট
আলো ও তাপ দিয়ে পৃথিবী কে বাঁচিয়ে রেখেছে সূর্য। কিন্তু সেই সূর্য সম্পর্কে আমাদের খুব বেশি জানা নেই। তাই এবার সূর্যের কাছে যাবে বিশেষ স্যাটেলাইট সোলার অরবিটার। সূর্যের চৌম্বক ক্ষেত্র ও অন্যান্য রহস্যের সমাধান খুঁজে স্যাটেলাইট। সূর্যের চৌম্বক ক্ষেত্র থেকে সৌর ঝড়ের মত সব রকম অস্থিরতা আলোড়ন সৃষ্টি হয়। অবশ্যই ছোট আকারের। কিভাবে ও ঠিক  কখন এই ঝড় সৃষ্টি হয় তা জানতে গবেষকরা যত নিখুঁতভাবে সম্ভব চৌম্বক ক্ষেত্র পর্যবেক্ষণ করতে চান। সেই লক্ষ্যে একাধিক টেলিস্কোপ সূর্যের একদম কাজ থেকে পর্যবেক্ষণ করতে চলেছে।
সূর্যের দিকে এগিয়ে গেলে প্রতিবার সোলার অরবিটার পৃথিবীর তুলনায় 10 গুণেরও বেশি বিকিরণের মুখে পরবে। এমন চওড়া আলোর সামনে টেলিস্কোপের চোখ অন্ধ হয়ে যাওয়ার কথা। সে কারণে প্রতিটি টেলিস্কোপের সুরক্ষার জন্য বিশেষ জানালা সৃষ্টি করা হয়েছে। ফলে গবেষণার খাতিরে যেটুকু প্রয়োজন শুধু ততটাই সূর্যের আলো প্রবেশ করতে পারবে। এই জানালাটি স্যাটেলাইট এর অন্যতম যন্ত্রের জন্য তৈরি করা হয়েছে। গ্রেটিনিন শহরের গবেষকরা এমনটাই সম্ভব করেছেন। সেটি সূর্যের উপরিভাগের অংশ অর্থাৎ ফটো শ্রেয়ার বিস্তারিত ভাবে বিশ্লেষণ করবে। সেখানকার চৌম্বক ক্ষেত্রের মানচিত্র তৈরি করাও সেটির কাজ। চৌম্বক ক্ষেত্রের শক্তি ও দৈর্ঘ্য নির্ণয় করা হবে এমনকি সূর্যের ভেতরের অংশে উঁকি মারতে পারবে সেই যন্ত্র। সূর্যের গভীরে উঁকি মারা গবেষকদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।
কারণ সেখানেই সূর্যের চৌম্বক ক্ষেত্র সৃষ্টি হয় এবং সেখান থেকেই বিপদজনক সৌর ঝড় বেরিয়ে আসে। সোলার অরবিটার সূর্যের বহুস্তর বায়ুমণ্ডলও পরীক্ষা করবে। সেই লক্ষ্যে টেলিস্কোপ গুলি আলোর বিভিন্ন এক্সপেক্টলের ছবি তুলবে। সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মিও রেকর্ড করা হবে। গবেষকরা সেইসব রেকর্ডিং এর সমন্বয়ে সূর্যের মধ্যে আলোড়ন প্রক্রিয়া সম্পর্কে আরো জ্ঞান অর্জন করতে চান। সোলার অরবিটার এক মার্কিন যানের সঙ্গে সহযোগিতা করবে। সেটি সূর্যের আরো কাছে পৌঁছে যাবে। দুটি স্যাটেলাইট মিলে সৌর বাতাস পরীক্ষা করবে। সূর্যের সঙ্গে দূরত্ব অনুযায়ী সেইসব বৈদ্যুতিক চার্জ ভরা কনা রূপান্তর ও অধিভুক্ত করা হবে। সোলার অরবিটারের কল্যাণে সূর্য ও তার চৌম্বক ক্ষেত্র সম্পর্কে নতুন জ্ঞান অর্জনের আশা করছেন গবেষকরা। সূর্যের মধ্যে আলোড়ন আরো বেশি সময় ধরে পর্যবেক্ষণ করা সম্ভব হবে। কারণ এই স্যাটেলাইট সূর্যের আবর্তনের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে বিশেষ এক কক্ষপথে অবস্থান নেবে। সাত বছর পর সেটি দুই মেরু অঞ্চলের দিকে নজর দেবে। চৌম্বক ক্ষেত্র সৃষ্টির ক্ষেত্রে এই অংশের বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে। এখনও এই বিষয়ে আদৌ কোনো গবেষণা হয়নি। 
পোস্টটি ভালো লাগলে Like দিন, স্যাটেলাইট সম্পর্কে কোন কিছু জানার থাকলে অবশই কমেন্ট করবেন এবং প্রতিদিন প্রযুক্তির সব letest নিউজের Update পেতে  ডাউনলোড করে নিন  প্রযুক্তির আলো  অ্যাপসটি । 

What's Your Reaction?

like
1
dislike
0
love
0
funny
0
angry
0
sad
0
wow
0