খুব শীঘ্রই বাজারে আসছে Google Pixel 4 এবং Pixel 4 XL

248

২০১৯ সালের মাঝামাঝি আসতেই Google Pixel ফোনের fourth generation-এর খবর কানে পৌঁছে গেলো। Google-এর এ flagship-গুলো বাজারে আসতে আরো ক’মাস অপেক্ষা করতে হবে। তবে তাদের ব্যাপারে তথ্য, গুজব, আলাপ ইত্যাদি ইতোমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে। যদ্দূর আমরা জানতে পেরেছি, একটু একটু করে সেগুলো উপস্থাপন করবো। কাজেই দেরী না করে এখনই বুকমার্ক করে রাখুন এ আর্টিকেলটি।

খুব শীঘ্রই বাজারে আসছে Google Pixel 4 এবং Pixel 4 XL

কতগুলো মডেল আসছে এবার?

অনেকের মতে, ভালো জিনিস ৩ সংখ্যায় আসে। Google flagship trio সম্পর্কিত গুজব গত কয়েক বছর যাবত শোনা যাচ্ছে। Pixel second generation-এর আগ থেকে শুরু করে Pixel 3 ও 3 XL আগমন পর্যন্ত এসব গুজব শোনা যাচ্ছিলো।তবে এবার যদি Google-এর মতো প্রযুক্তিদানব বেশ কিছু ফোন নিয়ে বাজারে নামে, ব্যাপারটি অস্বাভাবিক হবে না তেমু।

Pixel 3a এবং 3a XL আনার পর আরেকটি budget phone বাজারে নিয়ে আসার চিন্তা হয়তো Google করবে না। যদ্দূর জানা গিয়েছে, ‘সাধ্যের মধ্যে’ পরবর্তী Pixel ফোন ২০২০ সালের আগে পাওয়া যাচ্ছে না।

২০১৯ সালে যুক্তরাষ্ট্রসহ অন্যান্য অনেক দেশে 5G network support-সহ ফোন বেরিয়েছে। এমনকি অনেক নির্মাতা 5G network চালুর আগে থেকেই সে frequency support করে এমন ফোন তৈরি করে ফেলেছে। যেহেতু বছর শেষের দিকে Google তার Pixel ফোনগুলো বাজারে আনতে পারে, সম্ভাবনা আছে এরই মাঝে 5G Pixel 4 এনে দিতে পারবে। বাজারে না হলেও, অন্তত তার পরিকল্পনা হয়তো হাজির করা সম্ভব হবে।


ডিজাইন—যেখানে Google-এর খেলা বাকি

স্মার্টফোনের ডিজাইনের ক্ষেত্রে দু’ধরণের নির্মাতা প্রতিষ্ঠান দেখা যায়—যারা trend তৈরি করেন, আর যারা trend অনুসরণ করেন। Google দ্বিতীয় রকমের নির্মাতা প্রতিষ্ঠান। তবে সর্বদা খুব একটা আকর্ষণীয় ছিলো না তার ডিজাইনগুলো। সন্দেহ নেই ক্যামেরা এবং পারফর্মেন্সের দিক থেকে Pixel 3 এবং 3 XL দারুণ, তবে ডিজাইনের দিক থেকে এতোটা নজর কাড়তে সক্ষম হয়নি সেগুলো। Pixel 3 XL-এর sizable notch এবং bottom bezel অন্যান্য প্রতিদ্বন্দ্বী যেমন Samsung Galaxy S9 অথবা নতুন S10, OnePlus 6T বা iPhone XS-এর তুলনায় নেহায়েত জবরজং! আকারে আরেকটু ছোটো Pixel 3 দেখতে অনেক সুন্দর, তবে all-screen phone-এর এ যুগে ডিজাইনটি বেশ সেকেলে মনে হয়।

তবে হ্যাঁ, ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে ২০১৯ সালে এসব ব্যাপারে খেলা দেখাবে Google। জানুয়ারী মাসে করা এক প্যাটেন্ট আবেদন থেকে জানা যায় Google একটি all-screen phoneনিয়ে কাজ ইতোমধ্যেই শুরু করেছে। ক’দিন পূর্বে ফাঁস হয়েছে যে পরবর্তী Pixel ফোনে Galaxy S10 series-এর মতো punch-hole ডিজাইন থাকতে পারে। হ্যাঁ, trend তৈরি করার মতো কিছু নয় বটে, তবে Google-এর পূর্বের অবস্থান থেকে বেশ উন্নতি হচ্ছে সন্দেহ নেই। দেখা যাক এবার আশা পূর্ণ হয় কিনা।

আরেকটি খবর মতে, আসন্ন দুটি ফোনের যেকোনো একটিতে থাকবে সামনে-পেছনে dual camera setup। বড় ধরণের একটি পরিবর্তন সূচিত করতে যাচ্ছে Google। এ ব্যাপারে বিস্তারিত আলাপ আসছে সামনেই।


এবার একটু ইন্টারেস্টিং কিছু তথ্য শোনা যাক। সাধারণতঃ fingerprint scanner Pixel ফোনের পেছনের দিকে বসানো হয়। কিন্তু ফাঁস হওয়া ছবিতে এমন কিছুই দেখা যাচ্ছে না। যদি আসলেই এমনটা হয়ে থাকে, তবে যেকোনো একটি বিষয় হতে পারে:

এক: digit-reader পাওয়ার বাটনের সাথে জুড়ে দেয়া হতে পারে।

দুই: আরো আধুনিক under-display নিয়ে কিছু একটা হতে পারে।

তিন: হয়তো এই বায়োমেট্রিক ব্যবস্থা একদম বাদ দিয়ে অত্যাধুনিক Face ID ব্যবস্থা আনা হতে পারে। এমনটি করা হয়েছে iPhone X-এ।

কোনো বাটন থাকছে না?

নতুন খবর অনুযায়ী Pixel 4 series-এ কোনো বাটন থাকছে না। Aluminum frame-এর সাথে ডিভাইসটিতে থাকবে ক্লিক করার মতো পাওয়ার এবং ভলিউম বাটন। Pixel 4 এবং Pixel 4 XL-এর ডান পাশ বরাবর থাকবে এক সেট capacitive touch alternatives।

এমন পরিবর্তন আনার কারণ জানা যায়নি।হতে পারে বর্তমানের কোনো ফিচারের এহেন পরিবররত্নের কোন সম্পর্ক রয়েছে।আশা করা হচ্ছে পূর্বের generation-গুলোর মতোই Pixel 4 series-এ থাকছে Google Active Edge squeezable frame। বর্তমানের মডেলের ফিচারটি aluminum frame-এর যেসব অংশে বাটনের কাজ নেই, শুধু সেসব অংশে কাজ করে। তবে capacitive alternativesআনার মাধ্যমে হয়তো ফোনের পুরো পাশ জুড়েই ফিচারটি কাজ করবে।

তবে Google যে ওজরই পেশ করুক না কেন, বেশ সমালোচনার মুখে পড়তে হবে এসব পরিবর্তনের জন্য। অনেকে বলছেন এমনটা হওয়ার সম্ভাবনা খুব কম। শোনা কথায় কান দেয়াও দরকার সাবধানে।

ক্যামেরা

ফটোগ্রাফির জন্য Pixel ফোনগুলোর বেশ নামডাক আছে। কাজেই Pixel 4 এবং Pixel 4 XL এর ব্যতিক্রম করবে না বলেই ধারণা।বর্তমান generation-এর মডেলগুলো ফোন জগতে প্রথম dual front-facing camera এনেছে।এবার হয়তো ফোনের পেছনেও dual camera দেখা যাবে।




অনেক নির্মাতা dual camera-এর দিকে বেশ ঝুঁকে পড়েছিলেন, trend বলে কথা! তবে Google-এর পদক্ষেপ ভিন্ন ছিলো। প্রতিষ্ঠানটি একটি ক্যামেরাতে থেকেই দারুণ পারফর্মেন্স দিচ্ছিলো। সর্বাধুনিক hardware-software Pixel-কে ব্যতিক্রমধর্মী image-processing-এ সহায়তা করেছিলো।

সর্বশেষ খবর অনুযায়ী ফোনের পেছনে দুটি ক্যামেরা থাকতে পারে। ফাঁস হওয়া ছবিতে ডিম্বাকৃতির camera module দেখে তেমনটাই মনে হচ্ছে। Google যদি একটি ক্যামেরা দিয়েই মাত করে দেয়, দুটি ক্যামেরা হলে না জানি কি হয়!

Google Pixel 4 4 XL প্রযুক্তি ও ফিচার

Android flagship হিসেবে ডিভাইসদ্বয়ে থাকতে পারে Qualcomm-এর সর্বাধুনিক SoC Snapdragon 855। RAM এবং internal storage নিয়ে এখনো তেমন কিছু জানা যায়নি। তবে ধারণা করা হচ্ছে আগের চেয়ে বেশ কিছু উন্নতি আসবে।

বর্তমানের মডেলগুলোতে আছে 4GB RAM এওং 64GB storage। Android ব্যবহারকারী শক্তিশালী ফোনগুলোর সাথে পাল্লা দিতে চাইলে Google-কে অবশ্যই RAM বাড়িয়ে নিতে হবে 6GB-তে। SD card slot থাকলে 64GB internal storage মোটামুটি সন্তোষজনক। তবে যেহেতু SD card slot থাকছে না Pixelফোনে, আশা করা যায় storage থাকবে 128GB।

প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী নতুন ফিচারের মধ্যে আছে Dual SIM functionality। বর্তমানের মডেলগুলোতে আছে eSIM এবং SIM card slot। কিন্তু এই Dual SIM slot-গুলো Single Standby। অর্থাৎ eSIM এবং SIM card slot একসাথে কাজ করে না। নতুন Pixel ফোন Dual SIM Dual Standby। অর্থাৎ একই সময়ে দুটি SIM কাজ করবে। তবে হ্যাঁ, Dual Standby থাকলে যে একই সময়ে দুটি কল বা দুইবার মেসেজিং করা যাবে, এমনটি নয়। সেজন্য আরেকটি ফিচার দরকার: Dual SIM, Dual Active।

Google Assistant

Google I/O ’19-এ Google Assistant-এর দারুণ একটি ডেমো দেখানো হয়েছিলো।নির্দেশ অনুযায়ী কাজ করার গতি, এমনকি আলাদা কোনো প্রক্রিয়া বা সময়গ্রহণ ছাড়াই এক কাজ থেকে পরের কাজে নিমেষেই ঢুকে পড়া অনেককেই চমৎকৃত করেছিলো। আশা করা যায় ইন্টারনেটের সাথে সংযুক্তি ছাড়াই যেসব কাজ ফোনটি করতে পারে, সেসবের জন্য এ ফিচারটি দারুণ সহায়তা করবে।


এবারকার Google Assistant সম্ভবত বিশেষভাবে Pixel 4-এর জন্য তৈরি। তবে কেন পুরোনো hardware-এ এবারকার Google Assistant চলবে না, তার কারণ জানা যায়নি।

দাম ও প্রাপ্তিস্থান

বছরে বছরে হালকা মূল্য বৃদ্ধি করা হয় Google ফোনগুলোর। মূল Pixel এবং Pixel XL-এর দাম শুরু হয়েছিলো যথাক্রমে ৬৫০ মার্কিন ডলার এবং ৭৬৯ মার্কিন ডলার থেকে। Third generation ফোনগুলো দাম শুরু হয়েছিলো ৭৯৯ মার্কিন ডলার এবং ৮৯৯ মার্কিন ডলার থেকে। অর্থাৎ প্রতি বছর গড়ে ৫০ মার্কিন ডলার করে দাম বেড়েছে।

কাজেই এটা ভাবা যৌক্তিক হবে যে Pixel 4 এবং 4 XL-এর জন্য আরো ৫০ মার্কিন ডলার বাড়ানো হবে। তবে ভুলে গেলে চলবে না Google অবশ্যই তার প্রতিদ্বন্দ্বীদের কথা চিন্তা করেই দাম নির্ধারণ করবে। Apple এবং Samsungতাদের কিছু flagship এনেছে যা ক্রেতাবর্গের সাধ্যের মধ্যে। iPhone XR এবং Samsung Galaxy S10e-এর দাম শুরু হয়েছে ৭৫০ মার্কিন ডলার থেকে এবং ধীরে ধীরে তা আরো কমে আসবে।এতে ছোটো আকৃতির Pixel-গুলো একটু অসুবিধায় পড়তে পারে, যদিও তার দাম ৮৫০ মার্কিন ডলার হয়। কাজেই, সম্ভবত Google পূর্বের দামেই নতুন ফোনগুলো বিক্রি করবে, অথবা আরেকটু সস্তায় আরেকটি মডেল আনবে বাজারে।

খুব সম্ভব অক্টোবর মাসের প্রথম ১০ দিনের মধ্যেই ঘোষণায় চলে আসবে Pixel 4 এবং 4 XL। এমনটি গত ৩ বছর যাবত হয়ে আসছে। ঘোষণার এক মাসে যেতে না যেতেই বাজারে ফোন ছেড়ে দেয়ার ঐতিহ্য আছে Google-এর। সুতরাং বাজারে আসতে নভেম্বর পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হতে পারে।

পোস্টটি ভালো লাগলে Like দিন, ফোনটি সম্পর্কে কোন কিছু জানার থাকলে অবশই কমেন্ট করবেন এবং প্রতিদিন প্রযুক্তির সব letest নিউজের Update পেতে (প্রযুক্তির আলো.কম) এর সাথে থাকুন ।     

আরও পড়ুনঃ চাঁদের অন্ধকার প্রান্তে রহস্যময় খনিজ পদার্থ পেলো চীনের রোভার