Asus বাজারে নিয়ে আলো ROG Strix XG35VQ মনিটর

কম্পিউটার মনিটরের বাজার এখন সরগরম। প্রচুর পণ্য! কোনটা ভালো, কোনটা খারাপ, বোঝাই মুশকিল! গেমিং কম্পিউটার বানাতে চাইলে এ প্রশ্নটি আসা স্বাভাবিক। কোন মনিটর ছেড়ে কোন মনিটর নিবেন? 144Hz refresh লাগবে, নাকি 240Hz?Adaptive sync দরকার? আর তা থাকলে GSync নাকি FreeSync? HDRথাকা কি ফরয? এছাড়া size, aspect ratio, resolution এবং curvatureকেমন হবে? বহু কিছু হিসাবে আনা লাগে!

Asus বাজারে নিয়ে আলো ROG Strix XG35VQ মনিটর

এদিক থেকে অবশ্য ভালোই করছে Asus ROG Strix XG35VQ। হয়তো আকারে সবচেয়ে বড় নয়, শক্তিতে সবচেয়ে বলবানও নয়, কেবল 35 inch। Resolution-ও বাজারের সবচেয়ে বেশি নয়, কেবল 3,440by 1,440 pixels। Refres rate পড়ছে 100Hz। HDR ব্যবস্থা নেই। যেখানে Asus-এরই আরেকটি মনিটর যেমন ROG Swift PG27UQ এবং Acer Predator X27-তে 4K, 144Hz এবং HDR ব্যবস্থা আছে।
তবে Asus বলছে, এতকিছু না হলেও গেমিংয়ের জন্য যা যা দরকার, সবই আছে এই মনিটরে। ধরে নিতে পারেন এটি আধুনিক গেমিং মনিটর, যেখানে কেবল প্রয়োজনীয় জিনিসের দিকে মনোযোগ দিয়ে বাকি সবই বাদ দেয়া হয়েছে। দামটি বেশ পড়ছে। কিন্তু দাম উসুল হবে তো?

দাম ও প্রাপ্তিঃ 

বাজারে এসেছে ক’দিন হলো। তবুও মনিটরটির দাম এখনো ৭৬০ মার্কিন ডলার (বা ৫৫ হাজার টাকা)। অন্যান্য 34-inch, 25-inch গেমিং মনিটর, যেমন LG 34UC79G থেকেও বেশ দাম পড়ছে।


ডিজাইনঃ
নান্দনিক দৃষ্টিকোণ থেকে XG35VQ অবশ্য Asus ROG series-এর মধ্যে একটু অন্যরকম। সরু আছে, কলকব্জাও ঠিকঠাক বসানো, তবে স্টাইলটা যেন এখনো কৈশোর অতিক্রম করছে। মনিটরটিতে থাকছে LED-চালিতLight Signature। এটি দিয়ে মনিটরের নিচ বরাবর Asus-এর লোগো ভাসবে। গেমিংয়ের সাথে ব্যাপারটির সম্পর্ক কি তা অন্য কথা, তবে একারণেই হয়তো দামটা বেড়েছে। আগের মতোই থাকছে এই আলোকার্যে Aura mood তৈরি হয়।
উপরের অংশ বেশ শক্ত অনুভূত হবে। হয়তো ‘টাকা উসুল হয়েছে’ ভাব আসবে বৈকি! বিষয়টি অন্যান্য প্রযুক্তির ক্ষেত্রেও খাটে। থাকছে VA LCD প্যানেল, যার contrast ওcolor saturation এতই ভালো যে, image qualityঅসাধারণ চলে আসে। Asus-এর দাবী, XG35VQ-এরgrey-to-grey response timeমোটে 4ms। সম্ভবত এই VA LCD-এর কারণেই। Extreme Low Motion Blur প্রযুক্তিতে সময় 1ms বলে দাবী Asus-এর, তবে সে জন্য অতিমাত্রায় কাজ দরকার। কেননা, প্যানেলের গতি একটু কম।

Asus বাজারে নিয়ে আলো ROG Strix XG35VQ মনিটর

সম্ভবত এজন্যেই প্যানেলের refresh rate 100Hz। গেমিং ছাড়া অন্যান্য প্যানেলে যা 60Hz। বিষয়টি হয়তো যৌক্তিক। তবে হাল আমলে যখন 144Hz, এমনকি 240Hz refresh rate-এর গেমিং মনিটরও পাওয়া যাচ্ছে, তখন ব্যাপারটি কেন্মন বেখাপ্পা লাগে। অবশ্য AMD FreeSync-এর মাধ্যমে adaptive refresh-এর ব্যবস্থাও করা যায়।
Nvidia-কে ধন্যবাদ FreeSync-এর জন্য video card বের করার জন্য। এতে ক্রেতারা আশ্বাস পাবেন যে, মনিটরটির graphics board Nvidia বা AMD যা-ই হোক, adaptive refresh দিয়ে চাহিদামাফিক ফিচার আনা যাবে। যদি Asus মনিটরটি কেবল Nvidia-only G-Sync রাখতো, তবে এমন সুবিধা হতো না।
অন্যান্য দিকে 35-inch প্যানেলটিতে aspect ratio থাকছে 21:9, curvature 1800r এবং resolution 3,440 by 1,440। প্যানেলের তিন দিকে সরু bezel দেয়া । মনিটরে 4K support শুনতে তো ভালোই লাগে। তবে graphics subsystemভয়াবহ চাপ পড়ে। তাই কিছুটা ছাড় দিলে ১০০০ মার্কিন ডলার (১০০০ পাউন্ড) কিংবা তার চেয়েও বেশি ব্যয় করে video card না কিনে দিব্যি গেমিং করা যাবে। HDR certification এবং USB Type-C connectivity থাকছে না। গেমিং মনিটরে অবশ্য ইদানীং এসব তেমন থাকে না।


Performanceঃ
HDR certified মনিটর নেই Asus ROG Strix XG35VQ-তে। তবুও মোটামুটি HDR spectrum তালিকার সর্বনিম্ন নামগুলো, যেমন Display HDR 400 certification-এর সাথে পাল্লা দিতে পারবে ঠিকই। এ ব্যাপারে VA প্যানেল বেশ কাজে দিচ্ছে। অবশ্য কর্মদক্ষতার দিক থেকে এ মনিটর থেকে আরো ভালো জিনিস দেখা যায়। Default factory calibration-এ মনিটরে black and white scale-এ compression-এর প্রমাণ পাওয়া গিয়েছে। ভাল মানের IPS-কে তেমন চাপ দিবে না viewing angle।

Asus বাজারে নিয়ে আলো ROG Strix XG35VQ মনিটর

এসব ছোটোখাটো জিনিসপাতি অবশ্য Windows-এ গেমিং-ওয়ার্কিং সব ধরণের মনিটরে কাজ দেয়। অনেকের ক্ষেত্রে মনিটরটির 100Hz refresh rate অন্য মনিটরের 144Hz-এর মতোই কাজ দেয়। হ্যাঁ, অবশ্যই এই দুই rate-এর মধ্যে পার্থক্য বোঝা যায়, তবে তা খুবই অল্প। XG35VQ-এর OSD menu-তে five levels of pixel overdrive রেখেছে Asus।Overdrive একটু বাড়িয়ে দিলে ছোটো inverse ghosting দেখা যাবে। অর্ধেক করে দিলে প্যানেল আরো তাড়াতাড়ি কাজ করবে,সাড়া দিবে দ্রুত, যেহেতু VA underpinningsআছে।
XG35VQ’s FreeSync পরীক্ষণের সময়ে Nvidia GeForce GTX 1080-চালিত test rig-এর সাথে বেশ কাজ করেছে। পূর্বে কেবল একটি GPU vendor-এর সাথে কাজ করা যেতো, সে তুলনায় এখন বিষয়টি বেশ উপকারী হয়েছে। 1880r curvature, 35-inch proportion এবং বাকি জিনিসপত্রসহ প্যানেলটি গেমিংয়ের জন্য দুর্দান্তই বলা চলে। কাজ করে দ্রুত, দেখতেও আলাদা ভাব আছে। বিভিন্ন image preset দিয়ে সাজানো হয়েছে Asus ROG Strix XG35VQ। ব্যবহারকারীরা হয়তো সব কয়টা ব্যবহার করবেন না। এর মধ্যে sRGB preset-টি একই সাথে গেমিং এবং অন্যান্য ভারী কাজ করতে বেশ সহায়তা করবে।


এসব মাথায় রাখলে 3,440by 1,440 resolution বেশ ভালো। অনেক উচ্চমধ্য অবস্থানের graphics card যেমন Nvidia Geforce GTX 1070 বা RTX 2060 মনিটরের 100Hz refresh rate দিয়েও বেশ কাজ দেখাতে পারবে।
প্রকৃত গেমিং প্যানেল হিসেবে Asus ROG Strix XG35VQ দারুণ, তবে সমস্যা একটিই; দাম। যথেষ্ট টাকা গুণতে হবে টি কেনার জন্য, এমনকি অফার থাকলেও। উদাহরণ দিতে গেলে, LG 34UC79G-এর resolution একই, 144Hz IPS প্যানেল আছে, কেবল 1-inch ছোটো হয়তো XG35VQ থেকে, দাম পড়ছে ২০০ মার্কিন ডলার কম। দেখতে কিন্তু দামী জিনিসই মনে হয়। তবে সম্ভবত গেমিংয়ের জন্য অতো ভালো নয়। কিছুক্ষেত্রে প্রযুক্তিও খানিক দুর্বল।
সব মিলিয়ে ROG Strix XG35VQ যথেষ্ট ভালো গেমিং মনিটর, তবে দামটা একটু বেশি!
পোস্টটি ভালো লাগলে Like দিন মনিটরটি সম্পর্কে কোন কিছু জানার থাকলে অবশই কমেন্ট করবেন এবং প্রতিদিন প্রযুক্তির সব letest নিউজের Update পেতে (প্রযুক্তির আলো.কম)  এর সাথে থাকুন ।